কিডনির কাজ ও সুস্থ রাখার খাবার সমূহঃ

কিডনি কি?

কিডনি মানবদেহের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ ও অপরিহার্য অংগ। দেহের যে অংগ রক্ত থেকে ইউরিয়া, বাড়তি মিনারেল ও অন্যান্য তরল বর্জ্য আলাদা করে দেহ থেকে বের করে দেয় তাকে কিডনি বলা হয়।

কিডনির কাজঃ

প্রতিটি মানব দেহে দুইটি করে কিডনি থাকে। দৈনন্দিন খাবার হজম প্রক্রিয়া চলাকালীন সময়ে রক্তে যে সব টক্সিন চলে আসে তার বেশির ভাগই ইউরিক এসিড বা ইউরিয়া। এই ইউরিক এসিড বা ইউরিয়া প্রয়োজনের তুলনায় শরীরের বাড়তি পানি প্রসাবের মাধ্যমে কিডনি বের করে দেয়। এর পাশাপাশি কিডনি শরীরের এমন কিছু বিরল ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে থাকে, যা না করলে কিছুতেই শরীরকে সুস্থ রাখা সম্ভব হতো না। স্বাস্থ্যবান হৃদপিন্ডের মতই একটি স্বাস্থ্যবান কিডনি থাকাটাও জরুরি।
এমন গুরুত্বপূর্ণ একটি অংগের সুস্থতার জন্য প্রয়োজন বাড়তি একটু টেইক কেয়ার একটি নিয়মিত খাদ্যাভ্যাসও। এইজন্য অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ অংগসমূহের মতই কিডনির রক্ষায়ও বিশেষ কিছু খাবার খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন কিডনি বিশেষজ্ঞরা। ভূমিকা লম্বা না করে চলুন মূল আলোচনায় চলে যাই।

কিডনির যত্নে খাবার সমূহঃ

১)সবুজ শাক সবজিঃ

সবুজ শাক সবজিতে ভিটামিন সি, কে, ফাইবার ও ফলিক এসিড থাকে। যা খেলে ডায়াবেটিস ও উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সহায়তা করে এমনকি কিডনি জটিলতা কমিয়ে কিডনিকে সুস্থ ও স্বাভাবিক রাখতে দারুন কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। তাই কিডনি সুরসুরক্ষায় প্রচুর পরিমানে সবুজ শাক সবজি খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন কিডনি বিশেষজ্ঞরা।

২) লেবুর শরবতঃ

প্রতিদিন লেবুর শরবত বা লেবু মিশ্রিত পানি খেলেও কিডনি পরিস্কার হয়ে থাকে। লেবুতে যে এসিডের উপাদান রয়েছে তা কিডনিতে জমা পাথর ভাংতে সহায়তা করে৷ এছাড়াও লেবুতে প্রচুর পরিমানে সাইট্রাস উপাদান রয়েছে। যা কিডনিতে থাকা ক্রিস্টালদের পরস্পরের জোড়া লাগাতে বাধা দেয়।

৩) আপেলঃ

একটি কথা প্রচলিত আছে যে প্রতিদিন একটা বা দুইটা আপেল খেতে পারলে আর ডাক্তারের ধারে কাছেও আসতে হবে না। এইটা কিডনির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারেরা। কারন আপেল একটি অতি উচ্চ আঁশযুক্ত খাবার। এতে রয়েছে প্রচুর পরিমানে অ্যান্ট্রি- ইনফ্লামেটরি অতিরিক্ত কোলেস্টেরল দুর করে হৃদরোগ প্রতিরোধ করে থাকে। এছাড়াও এটি ক্যন্সারেরে ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে৷ তাই কিডনি সুস্থ রাখতে প্রতিদিন একটা কাচা বা রান্না করে অথবা প্রতিদিন এক গ্লাস আপেলের জুস খাওয়ার চেষ্টা করুন।

৪) আদাঃ

কিডনিকে আরও বেশি কার্যকরী ও সুস্থ রাখতে প্রতিদিন একটু আদা খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারেরা। কেননা আদায় থাকা উপাদান কিডনিকে সুস্থ ও পরিস্কার রাখতে দারুণ কার্যকারী ভূমিকা পালন করে। এছাড়াও আদা কিডনিতে রক্ত চলাচল স্বাভাবিক করতে সহায়তা করে। যারফলে কিডনির কর্মক্ষমতা আরও বেড়ে যায়। যদি নিয়মিত কাচা আদা, আদার গুড়া কিংবা জুস করেও খাওয়া যায়। যা কিডনি পরিস্কার রাখতে দারুন কার্যকরী পদক্ষেপ বলে মনে করেন বলে মতামত প্রকাশ করেছেন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারেরা।
ভাল লাগলে শেয়ার করুন

adminsashthokotha

Back to top